আজ সারা বিশ্বে কি হতে যাচ্ছে একটু দেখে নিন,কারন জিবনে আপনি একবার এটা দেখতে পাবেন।

আজ ৬ জুন বিশ্বে ঘটতে যাচ্ছে এমন এক
মহাজাগতিক ঘটনা যা এ
জীবনে আপনি একবারই দেখার সুযোগ পাবেন।
এ এক অন্য ‘গ্রহন’! সূর্য
ঢেকে যাবে না বরং তার
গায়ে ফুটে উঠবে একটি চলমান কালো বিন্দু। সতর্কীকরন: ২০১২ সালের ৬ জুন এই
মহাজাগতিক ঘটনা না দেখলে জীবনভর আফসোস
করতে হবে আপনাকে। কারন এটি আবার
হবে ২১১৭ সালে,অর্থাত্ ১০৫ বছর পরে।
জ্যোর্তিবিজ্ঞানের পরিভাষায় ঘটনাটির নাম
সূর্যের উপর শুক্রের চলন (ট্রানজিট অব ভেনাস ওভার দ্য সান)। হিসাব
কষে দেখা গেছে প্রথমে ৮ বছর
পর,তারপরে ১২১ বছর ছয় মাস,তারপরে ফের ৮
বছর,তারপরে ১০৫ বছর ছয় মাস,তারপরে ফের
১২১ বছর ছয় মাস এমন পর্যায়ক্রমে সূর্যের
উপর ”হাঁটে” শুক্র গ্রহ (চলতি কথায় শুকতারা বা সন্ধাতারা)। আগামী ৬ জুন ভোর
থেকে সেটাই দেখা যাবে। কালো বিন্দুর
চেহারায় সাড়ে পাঁচ ঘন্টা ধরে সূর্যের
বুকে হাটতে হাটতে মিলিয়ে যাবে শুক্র।
সৌরজগতে শুধু শুক্র আর বুধের ক্ষেএই এ ধরনের
চলন দেখা যায়।কারন দুটোর কক্ষপথই পৃথিবী ও সূর্যের মধ্য দিয়ে গেছে। কেন এই ঘটনা ঘটবে..? ~সূর্যগ্রহনের
পিছনে যে কারন,এর পেছনেও তাই।
সূর্যগ্রহনের সময়ে পৃথিবী ও সূর্যের মধ্য চাঁদ
চলে আসে আর একই সরলরেখায় অবস্থান করায়
চাঁদের ছায়া সূর্যের গায়ে পড়ে। ৬ জুন একই
ভাবে পৃথিবী ও সূর্যের মধ্যে চলে আসবে শুক্র,সূর্যের উপরে যার
চলমান ছায়া পৃথিবী থেকে দৃশ্যমান হবে।
তা হলে সূর্যগ্রহন হবে না কেন?কারন,পৃথিবীর
সঙে চাঁদ ও সূর্যের পারস্পরিক একটি বিশেষ
অবস্হানের কারনে চাঁদের
ছায়া সূর্যকে ঢেকে দিতে সক্ষম হয় কিন্তু শুক্রের ক্ষেএ এ অবস্থানটা অন্য রকম।তাই
শুক্রের
ছায়া সূর্যকে ঢাকতে পারে না বরং কালো বিন্দুর
মতো দেখায়। ৬ জুন বাংলাদেশ সময় রাত
৪টা নাগাদ প্রথম সূর্যের গায়ে দাগ
ফেলবে শুক্র। কিন্তু তখন বাংলাদেশের কোথাও সূর্যদয়ই হবে না। পক্রিয়াটি শুরু হওয়ার
ঘন্টাখানিক পরে তা দেখতে পাবে এ দেশের
মানুষ। হুশিয়ারি, খালি চোখে এ দৃশ্য দেখবেন
না। সরাসরি সূর্যের দিকে তাকালে চোখের
মারাত্নক ক্ষতি হতে পারে। বিজ্ঞানীদের
পরামর্শ, ঘষা কাচ কিংবা অ্যালুমিনাইজড মাইলার ফিল্টার দিয়ে দেখুন এই মহাজাগতিক
দৃশ্য] আজ ৬ জুন বিশ্বে ঘটতে যাচ্ছে এমন এক
মহাজাগতিক ঘটনা যা এ
জীবনে আপনি একবারই দেখার সুযোগ পাবেন।
এ এক অন্য ‘গ্রহন’! সূর্য
ঢেকে যাবে না বরং তার গায়ে ফুটে উঠবে একটি চলমান কালো বিন্দু।
সতর্কীকরন: ২০১২ সালের ৬ জুন এই
মহাজাগতিক ঘটনা না দেখলে জীবনভর আফসোস
করতে হবে আপনাকে। কারন এটি আবার
হবে ২১১৭ সালে,অর্থাত্ ১০৫ বছর পরে।
জ্যোতিবিগগানের পরিভাষায় ঘটনাটির নাম সূর্যের উপর শুক্রের চলন (ট্রানজিট অব ভেনাস
ওভার দ্য সান)। হিসাব
কষে দেখা গেছে প্রথমে ৮ বছর
পর,তারপরে ১২১ বছর ছয় মাস,তারপরে ফের ৮
বছর,তারপরে ১০৫ বছর ছয় মাস,তারপরে ফের
১২১ বছর ছয় মাস এমন পর্যায়ক্রমে সূর্যের উপর ”হাঁটে” শুক্র গ্রহ (চলতি কথায়
শুকতারা বা সন্ধাতারা)। আগামী ৬ জুন ভোর
থেকে সেটাই দেখা যাবে। কালো বিন্দুর
চেহারায় সাড়ে পাঁচ ঘন্টা ধরে সূর্যের
বুকে হাটতে হাটতে মিলিয়ে যাবে শুক্র।
সৌরজগতে শুধু শুক্র আর বুধের ক্ষেএই এ ধরনের চলন দেখা যায়।কারন দুটোর কক্ষপথই পৃথিবী ও
সূর্যের মধ্য দিয়ে গেছে। *কেন এই ঘটনা ঘটবে..? ~সূর্যগ্রহনের
পিছনে যে কারন,এর পেছনেও তাই।
সূর্যগ্রহনের সময়ে পৃথিবী ও সূর্যের মধ্য চাঁদ
চলে আসে আর একই সরলরেখায় অবস্থান করায়
চাঁদের ছায়া সূর্যের গায়ে পড়ে। ৬ জুন একই
ভাবে পৃথিবী ও সূর্যের মধ্যে চলে আসবে শুক্র,সূর্যের উপরে যার
চলমান ছায়া পৃথিবী থেকে দৃশ্যমান হবে।
তা হলে সূর্যগ্রহন হবে না কেন?কারন,পৃথিবীর
সঙে চাঁদ ও সূর্যের পারস্পরিক একটি বিশেষ
অবস্হানের কারনে চাঁদের
ছায়া সূর্যকে ঢেকে দিতে সক্ষম হয় কিন্তু শুক্রের ক্ষেএ এ অবস্থানটা অন্য রকম।তাই
শুক্রের
ছায়া সূর্যকে ঢাকতে পারে না বরং কালো বিন্দুর
মতো দেখায়। ৬ জুন বাংলাদেশ সময় রাত
৪টা নাগাদ প্রথম সূর্যের গায়ে দাগ
ফেলবে শুক্র। কিন্তু তখন বাংলাদেশের কোথাও সূর্যদয়ই হবে না। পক্রিয়াটি শুরু হওয়ার
ঘন্টাখানিক পরে তা দেখতে পাবে এ দেশের
মানুষ। হুশিয়ারি, খালি চোখে এ দৃশ্য দেখবেন
না। সরাসরি সূর্যের দিকে তাকালে চোখের
মারাত্নক ক্ষতি হতে পারে। বিজ্ঞানীদের
পরামর্শ, ঘষা কাচ কিংবা অ্যালুমিনাইজড মাইলার ফিল্টার দিয়ে দেখুন এই মহাজাগতিক
দৃশ্য]

2 thoughts on “আজ সারা বিশ্বে কি হতে যাচ্ছে একটু দেখে নিন,কারন জিবনে আপনি একবার এটা দেখতে পাবেন।

  1. অতি প্রয়োজনীয় পোষ্ট ।ধন্যবাদ শেয়ার করার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *