আফগানিস্তানে জঙ্গি হামলায় বাংলাদেশি নিহত – সকলের দৃষ্টি চাই

আফগানিস্তানে জঙ্গি হামলায় বাংলাদেশি নিহত – ভুল খবর প্রকাশ করল বিভিন্ন

খবর দাতাগণ অর্থাৎ সাংবাদিকগন

নিহত বাংলাদেশি মো: মহিউদ্দিন এর বাড়ি ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় । তার দুই সন্তান ও  স্ত্রী ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় থাকেন । নিহত মোহাম্মদ মহিউদ্দিন  গত আড়াই বছর ধরে গোর শহরে ব্র্যাকের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করে আসছিলেন । এর পুরো সত্য হল ………………………………..

নিহত মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ২০১২ এর ফেব্রুয়ারী মাসেই বাড়িতে আসতে চেয়েছিলেন কিন্তু তখনই তার উপর আক্রমন হয় তারই সহকর্মী কতৃক । ্এর ফলে তার দেশে ফিরে আসা আর হয়নি । কিন্তু যখন  মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ০৩ মে ২০১২ তে আবার বাড়ি ফিরার কথা আসে তখনই তিনি আবার এই আক্রমনকারীদের হাতে আক্রমিত হন ।০৩ মে ২০১২ বৃহস্পতিবার ভোরে তাকে মেরে ফেলা হয় ।

 

মেরে ফেলার মূল কারণ  –  অধিনস্তদের উচ্চাকাঙ্খা ও সম্পদের লোভ ।

মণগড়া কাহানী দিল সাংবাদিক ………………………………..

ঢাকা, মে ০৪ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম)- আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলে গোর প্রদেশে ব্র্যাক কার্যালয়ে তালেবান হামলায় এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।

আফগানিস্তানের সংবাদ সংস্থা পাজওয়োক আফগান নিউজ জানায়, গোরের প্রাদেশিক রাজধানী চাগচারানে বৃহস্পতিবার ভোরে এ হামলা হয়।

শুক্রবার ব্র্যাকের এক সংবাদ বিজ্ঞতিতে জানানো হয়, নিহত মোহাম্মদ মহিউদ্দিন (৪১) গত আড়াই বছর ধরে গোর শহরে ব্র্যাকের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করে আসছিলেন। দুই সন্তানকে নিয়ে তার স্ত্রী ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় থাকেন।

ব্র্যাক আফগানিস্তানের প্রধান খন্দকার আরিফুল ইসলাম টেলিফোনে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “তিনি ছিলেন একজন দক্ষ কর্মকর্তা। এই ঘটনা প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিগতভাবে আমার জন্য অনেক বড় ক্ষতি।”

তিনি জানান, মহিউদ্দিনের লাশ জাতিসংঘের একটি বিমানে করে বৃহস্পতিবারই গোর থেকে কাবুলে পাঠানো হয়েছে। শনিবার কাবুল থেকে মরদেহ ঢাকায় আনা হবে।

ঢাকায় ব্র্যাকের মিডিয়া ম্যানেজার জিয়া হাশান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ইতোমধ্যে ময়মনসিংহে
মহিউদ্দিনের গ্রামের বাড়িতে মৃত্যু সংবাদ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

গোর শহরের ওই ব্র্যাক কার্যালয় আফগানিস্তানের গোয়েন্দা বিভাগের একটি অতিথিশালা থেকে মাত্র শ পাঁচেক গজ দূরে অবস্থিত বলে পাজওয়োক আফগান নিউজের খবরে জানানো হয়।

আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ প্রধান কর্নেল মুর্তাজা মুলেশ বলেন, তালেবান জঙ্গিদের একটি দল হঠাৎ হামলা চালালে ঘটনাস্থলেই নিহত হন মহিউদ্দিন। এ সময় আরেক বাংলাদেশি সামিউল হক সেখান থেকে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।

পরে ঘটনাস্থল থেকে আহত অবস্থায় হামলাকারীদের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান তিনি।

ওই তালেবান সদস্য পুলিশকে জানিয়েছে, ব্র্যাক কর্মীদের অপহরণ করে মুক্তিপণ হিসাবে বন্দি তালেবানদের মুক্তির দাবি জানানোর পরিকল্পনা করেছিল তারা। এই হামলায় অংশ নেয় পাঁচ তালেবান জঙ্গি।

হামলার পর ব্র্যাক কার্যালয় থেকে পালিয়ে আসা সামিউল হক পাজওয়োক আফগান নিউজকে জানান, ভোরে ওই কার্যালয়ে তার সঙ্গে ঘুমিয়ে থাকা আরেক আফগান কর্মীও অক্ষত অবস্থায় পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।

ব্র্যাকের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কৃষি বিশেষজ্ঞ মহিউদ্দিন গত ১৪ বছর ধরে ব্র্যাকের বিভিন্ন প্রকল্পে কাজ করে আসছিলেন। ২০০৯ সালে গোরে ব্র্যাকের জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্পের দায়িত্ব নিয়ে তিনি অফগানিস্তানে যান।

আফ্রিকার দক্ষিণ সুদান থেকে দক্ষিণ আমেরিকার হাইতি পর্যন্ত বিভিন্ন দেশে শিক্ষা, কর্মসংস্থান, ক্ষুদ্রঋণসহ বিভিন্ন কার্যক্রম রয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বেসরকারি প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বীকৃত ব্র্যাকের। আফগানিস্তানে ব্র্যাকের তিন হাজার কর্মীর মধ্যে ১৫২ জন বাংলাদেশি রয়েছেন।

২০০২ সালে ব্র্যাক আফগানিস্তানে শাখা খোলার পর থেকে এ পর্যন্ত বেশ কয়েকবার জঙ্গি হামলার শিকার হয়েছেন এ সংস্থার কর্মীরা। ২০০৭ সালের ১২ সেপ্টেম্বর অজ্ঞাত পরিচয় বন্দুকধারীরা ব্র্যাক কর্মকর্তা আব্দুল আলিমকে গুলি করে হত্যা করে। ওই ঘটনার তিন দিনের মাথায় অপহৃত হন নূরুল ইসলাম নামে আরেক কর্মকর্তা। দীর্ঘ ৮৩ দিন পর মুক্তি পান তিনি।

এরপর ২০০৮ সালের ২৫ অক্টোবর মো. আখতার ও মো. শাহজাহান নামের দুই কর্মকর্তাকে আফগানিস্তানের গজনি প্রদেশ থেকে অপহরণ করে অজ্ঞাতপরিচয় বন্দুকধারীরা। ১০ দিন পরে ২ নভেম্বর মুক্তি দেওয়া হয় তাদের।

২০১০ সালের ১৮ ডিসেম্বর আফগানিস্তানে ব্র্যাকের প্রকৌশলী আলতাফ হোসেনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ওই ঘটনায় অপহৃত হন আরো ছয়জন, যাদের মধ্যে দুইজন দুদিন পর মুক্তি পান।

আফগানিস্তানে ব্র্যাকের প্রধান খন্দকার আরিফুল ইসলাম বলেন, “গোরে নিরাপত্তার কোনো ঝুঁকির আভাস পাওয়া যায়নি। মহিউদ্দিনও আমাদের তেমন কোনো কিছু জানাননি।”

মণগড়া কাহানী দিল সাংবাদিক …………………………………

 

Author: shamvil

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *