আর কত ফ্রিল্যান্সিং এর টাইটেল লাগিয়ে প্রতারনা করবেন

আর কত ফ্রিল্যান্সিং এর টাইটেল লাগিয়ে প্রতারনা করবেন

প্রফেশনাল ব্লগিং এর ব্যাপারে যে চেইন টিউন শুরু করেছিলাম তাও শেষ করতে পারলাম না। তবে আবারো খুব শীঘ্রয়ই শুরু করার ইচ্ছা আছে। যাই হোক চলুন কথা না বাড়িয়ে আজকের বিষয়ে আলোকপাত করা যাক।

undefined

মনে পরে না আপনাদের সেই দিনের কথা গুলো – মূল কথায় আসিঃ

আসলে এমনিতেই আমাদের দেশে ইন্টারনেট ইউজার তুলনা মূলক কম আর যারাই নেট ইউজ করছে তাঁরা শুরুটা করছে ফেসবুক/মেসেঞ্জারে সময় দিয়ে। হঠাৎ যখন শুনেছে যে ইন্টারনেটে টাকা আয় করা যায়, আর যাচাই বাছাই না করেই কিছু লোকের অপপ্রচারণায় নেমে পড়ছে পিটিসি কিংবা এমএলএম এর মতো ‘হায় হায়’ কোম্পানিতে। আমাদের দেশের মানুষ বোকা কিনা জানিনা তবে তারা ঠকেও শেখে না ! কত কোম্পানী এল গেল, টাকার লোভে তাদের পাতা ফাঁদে পা দিল মানুষ। শেষে সর্বশান্ত হয়ে তবে সবার জ্ঞান ফেরে। একটা সময় ছিল যখন বিদেশী (বিশেষত ভারতীয়) কিছু কোম্পানী ও তাদের এদেশীয় এজেন্টরা প্রচার শুরু করল সারা বিশ্বে বছরে লক্ষ লক্ষ প্রোগ্রামার প্রয়োজন। হতাশ বেকার যুবকদের তারা টার্গেট করল। হাজার হাজার টাকার বিনিময়ে তাদের ওখানে ভর্তি হল লক্ষ তরুন তরুনী। প্রোগ্রামার কয়জন হয়েছে? কয়জনইবা ঠিক মত কম্পিউটার চালাতে পারে? কিন্তু বেকারত্বের সুযোগ নিয়ে বেকার যুবকদের কোটি কোটি টাকা নিয়ে তারা সরে পড়ল। কোথায় আজ কোথায় আজ সাইটটক, স্পিক এশীয়া এবং ইউনি পে টু ইউ ? আর তাদের এমএলএম বিজিনেস ??

শুরু হওয়া ফ্রিল্যান্সিং বিপ্লব এবং দেশের বর্তমান পরিস্থিতিঃ

কয়েক বছর যাবৎ বাংলাদেশে শুরু হয়েছে অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং বিপ্লব, কাজ জানা কর্মঠ ছেলেরা এই ক্ষেত্রকে করে তুলেছে সম্ভাবনাময়। আর এর পিছনে লেগে পরেছে ঠিক ঐ ধরনের কিছু সার্থন্যেশি মহল যারা হাতিয়ে নিতে চায় সাধারনের সর্বোস্য – এবারো টার্গেট বেকার যুব সম্প্রদায়। সবাই কাজ না শিখে টাকা আয় করতে চায়, কোম্পানীগুলোও সেই স্বপ্ন দেখায়। কিন্তু ব্যাপারটা যদি এত সহজ হত তবে কেউ বেকার থাকত না। অনলাইনে প্রচুর ফ্রিল্যানসি কাজ আছে, কিন্তু সেটা অনেক পরিশ্রম করে, প্রতিযোগীতা করে পেতে হয়। http://www.odesk.com/ , http://www.freelancer.com/ , http://www.vworker.com/ , http://www.elance.com/ এমন আরো অনেক সুপ্রতিষ্ঠিত অনলাইন মার্কেটপ্লেস আছে যেখানে কাজ পাওয়া যায় এবং প্রায় সবখানেই ফ্রি মেম্বারশীপ পাওয়া যায়।বেকারত্বের সুযোগ নিয়ে ডুল্যান্সার বা স্কাইল্যান্সারের মতো ওয়েবসাইট আমাদের দেশের সহজ সরল মানুষের মেধা গুলোকে পঙ্গু করে দিচ্ছে। ইন্টারনেট সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান না থাকায় সময়টাকে উপযুক্ত ব্যবহার না করে কিছু এমএলএম আর পিটিসি সাইটের পিছনে নিজেদের মননশীলতা বিকিয়ে দিচ্ছে তরুণরা।

হায়রে প্রতারক ডুল্যান্সার পিটিসি আর মলম করেই ফ্রিল্যান্সার !

অথচ আমাদের দেশের কিছু কুলংগার দেশের বেকারদের বেকারত্বের এই সুযোগ নিয়ে আবার কোটি কোটি টাকা তুলে নিতে চাচ্ছে। এবারে প্রত্যক্ষভাবে সজোরে সামনে নিয়ে এসেছে http://www.dolancer.com/ সাইটকে, উঠে পরে লেগেছে এর প্রচারাভিযানে। কয়েকটা পত্রিকাতে টাকা দিয়ে রিভিঊ ছেপে সেরা ফ্রিল্যান্সিং সাইট বলে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। এই সাইটটি সম্পূর্ণরুপে ভুয়া একটি সাইট যারা নিজেদের গায়ে ফ্রিল্যান্সিং টাইটেল লাগিয়ে ছেলেপেলেদের ভুলপথে পরিচালিত করছে। আবারো বলছি এরা সম্পূর্ণরুপে ভুয়া। চাইছে ডেস্টিনির মত নেটওয়ার্ক বিস্তার করতে। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলেও এদের হাজারো অনুসারী হয়ে গেছে। ১০০ ডলার বা ৭০০০ টাকার (কনভার্সান রেটটাও তারা কমিয়ে দিয়েছে) বিনিময়ে সেখানে সদস্য হতে হয়। আসুন একটু বিস্তারিত জানি ডুল্যান্সার এর সাইটটার সম্পর্কে…
তাদের সাইটের হোম পেজে তারা দাবী করছে যে “The world’s largest outsourcing & Website leasing marketplace !” হা হা… আরে আগে একটু হেসে নিন… কেননা কে ঘোষণা করলো তাদের তারা সবচেয়ে বড় মার্কেটপ্লেস, নিয়া আসো ঐ শালার ব্যাটারে একটু কিলাই। অথচ একটু নীচেই দেখুন লেখা আছে

  • 43644 freelance professionals
  • $559013.72 user earnings
  • 0 projects completed
  • 6 projects available

বিশ্বের সর্ববৃহৎ এই আউটসোর্সিং সাইটের কমপ্লিট কাজের সংখ্যা শূন্য। ধোঁকাবাজী আর কাকে বলে !!! সদস্যরা মোট আয় করেছেন 559013.72 ডলার, এই অংকটা অবশ্য খারাপ না ! তাদের সাইটের দাবী তারা নাকি ১২ বছরের অভিজ্ঞতা সম্পন্ন। অথচ এই সাইটের ডোমেইন কেনা হয়েছে ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১১ । হালনাগাদ করা হয়েছে গত ২৭ সেপ্টেম্বর তারিখে । হোস্টিং কেনা হয়েছে SoftLayer নামক সস্তা একটি প্রতিষ্ঠান থেকে। ডোমেইন নাড়ি- নক্ষত্রের লিংক : http://bit.ly/x4eowL

এবার সাইটের ডিজাইন এর দিকে একটু খেয়াল করুন। একটা আন্তর্জাতিক মানের প্রফেশনাল সাইটের ডিজাইন কখনই কি এমন হয়? তাদের সাইটের নেভিগেশানগুলো লক্ষ করেন কোথাও কোন জব নেই। তাদের জব এবং টাকা হল মুখে মুখে। শুনেছি তারা নাকি প্রথম মাসে ২১০০ টাকা দেয় পে টু ক্লিক বা PTC কাজ দিয়ে। তো আপনার কাছ থেকে ৭০০০ টাকা নিয়ে আপনাকে ২১০০ টাকা দিলেও তাদের তো কোন লোকসান নেই। এরা খুব দ্রুত এদের নেটওয়ার্ক ছড়াচ্ছে। এদের থেকে সাবধান। ৭০০০ টাকা পানিতে ফেলবেন না। তাদের সাইটের নীচে লেখা আছে powered By: Seochat লিংকটিতে গেলে দেখবেন বিজ্ঞাপনে ভরা একটা সাইট। কোন আন্তর্জাতিক মানের অউটসোর্সিং সাইটের মূল কোম্পনী এমন বিজ্ঞাপন নির্ভর হয় এটা প্রথম দেখা।

এখনি প্রয়োজন সতর্কতা, কর্মমুখী কিছু শিখুনঃ

এসব সাইট আমাদের মেধাগুলোকে অলস করে দিচ্ছে। নিজে কিছু করার ব্যাপারে অনুৎসাহিত করছে এবং প্রোডাক্টিভিটি কমিয়ে দিচ্ছে। সামান্য কিছু টাকার নেশায় অনেকে মূল্যবান সময় নষ্ট করছে কিন্তু কিছুই শিখছে না। ইন্টারনেট একটা বিশাল প্লাটফর্ম যেখানে কিছু করে দেখানোর অনেক অনেক সুযোগ রয়েছে। যদি টাকা ইনকাম ই যদি সব হয়ে থাকে তবে ‘পতিতা দিয়ে ব্যবসা করেও বা ভিক্ষা করেও টাকা পাওয়া যায়। এবং অনেকে করেও। কিন্তু সবাই ভিক্ষা কিংবা পতিতা ব্যবসা কেন করে না ? আসলে দরকার সঠিক গাইড লাইন। নতুনরা অনলাইন জগতের বিভিন্ন ক্ষেত্রগুলোতে নিজেদের ভালো অবস্থান তখনি তৈরি করতে পারবে যখন তাঁরা ভালো গাইডলাইন আর ভালো শিক্ষা পাবে, এ জন্য আমি বলবো যাচাই বাছাই করে সিদ্ধান্ত নিতে। ক্লিক করেই টাকা ইনকাম করা যায় এমন ধারনা পাল্টাতে হবে, কর্মমুখী কিছু শিখুন যা ভবিষ্যতে অনেক অনেক কাজে আসবে।

আমি বলবো যাদের সত্যিকারেই ফ্রিল্যান্সিং কিংবা ব্লগিং করছে এবং অভিজ্ঞ তাদের শরণাপন্ন হোন, কিংবা কোন সুনাম ধন্য আইটি ফার্ম বা আউটসোর্সিং প্রতিষ্ঠান এর মাধ্যমে ওয়েব ডিজাইন-ডেভেলপিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট, প্রোগ্রামিং, গেম ডেভেলপমেন্ট, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন অথবা অন্য কোন অনলাইন মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি হাতে কলমে শিখে নিন।

পদে পদে মানুষের উল্টা পাল্টা কথা শুনবেন তাই বলে কি চুপ করে থাকবেন ?

সতর্ক করুন আপনার ভাইকে, আপনার বোনকে, প্রতিবেশীকে, বন্ধুকে। যে এই সমস্ত সাইটের সদস্য হওয়ার বাজে প্রস্তাব নিয়ে আসবে তাকে বর্জন করুন। আমাদের মেধা গুলোকে এভাবে ঝরে পড়তে দিয়েন না। আসুন সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে এগিয়ে আসি, পথহীনদের সতঁর্ক করি কারন এরা তঁ অবুঝ জানে না কোনটা সঠিক কোন টা ভুল আর কোনটা লাইফ চেঞ্জ করে দিতে সক্ষম। প্লিজ সবাই সোচ্চার হোন, আপনার পাশের একটা ছেলেও যেন আর প্রতারিত না হয়, সময় অপচয় করে নিজের মেধাটাকে বিকিয়ে না দেয় ! লেখাটির লিংক শেয়ার করে দিন ফেসবুক ও অন্য সবখানে। পদে পদে হুমকি আর মানুষের উল্টা পাল্টা কথা আপনাকে শুনতে হবে তাই বলে কি পিছিয়ে আর চুপ করে থাকবেন ? না এমন টা কখনোই কাম্য নয়। আপনার উপযুক্ত যুক্তি গুলো দিয়ে হলেও তাদের কিছু বলুন…

ডুল্যান্সার/স্কাইল্যান্সার এর ল্যান্সারদের বলছি…

আমি জানি আমার এই লেখাতেও অনেকে ডুল্যান্সার বা স্কাইল্যান্সারের দালালরা বাম হাত দিতে আসবে। ভাই ইনকাম করতে পারলে অসুবিধা নাই, করেন। কিন্তু কথা হচ্ছে নিজেকে ফ্রিল্যান্সার ভাইবা ভুল করিয়েন না। আপনাদেরর কাছে আমার খুব সহজ কিছু প্রশ্ন… ভাই আপনাদের কি মনে হয় না আপনার মেধাটাকে ঐ সাইটগুলো অলস করে দিয়ে কিছু শেখার বা নিজে কিছু করার ব্যাপারে অনুতসাহিত করছে ? আমাদের নিজেদের প্রডাক্টীভিটি কমিয়ে দিচ্ছে ? তবে শুনেন সামান্য কিছু টাকার নেশায় আমরা আমাদের মুল্যবান সময় নষ্ট করে কিছু ই শিখছি না, কিন্তু কর্মমুখি কিছু জানা থাকলে এর চেয়েও বেশি ইনকাম করা সহজ। ভাই শেষে একটা কথা বলেতেই হয় “ ঘুমন্ত মানুষ জাগানো যায় কিন্তু ঘুমের ভান করে থাকা মানুষকে জাগানো যায় না”।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *