এবার শিখুন কিভাবে Electric Bill তৈরী করতে হয়।।মাইক্রোসফট এক্সেল (2007) লার্নিং জোন
আই-টেকার :: drmasud 249 টি আই-টেক

যে জানে তাকে তো বলার কিছু নেই!! আর আমার মত যারা জানেন না - সব না জানা শেয়ার করার মজাই ভিন্ন।। অল্প-স্বল্প যা জানি ও অন্যে ব্ন্ধৃগন যা জনেন তা সবার মাঝে জানানোই আমার __লক্ষ ।। নিজের লেখালেখি-- http://www.medicineinformer.com

এবার শিখুন কিভাবে Electric Bill তৈরী করতে হয়।।মাইক্রোসফট এক্সেল (2007) লার্নিং জোন

আই-টেকারঃ|বিভাগঃমাইক্রোসফট এক্সেল, মাইক্রোসফট ওয়ার্ড|প্রকাশিত সময়:জুন ২০, ২০১৩|০ টি কমেন্ট| ১,০২২ বার
এই টিউনটি সুপার টিউন মাইক্রোসফট এক্সেল এর 10 টি পর্বের 16 তম টিউন

আশা করি সবাই  ভাল আছেন। আলহামদুল্লিাহ  আমি ও ভাল আছি।সর্বপ্রথম টেকটিউনস কে ধন্যবাদ জানাচ্ছি,আমার টিউনকে চেইন টিউন করার জন্য। আজকে আমি মাইক্রোসফট এক্সেল উপর ধারাবাহিক পর্বের ৭ম পর্ব আপনাদের সাথে শেয়ার করব। তাহলে চলুন শুরু করা যাক………………..

Electric Bill

আজকে আমরা এক্সেলের মাধ্যমে ইলেকট্রিক  বিল তৈরী করা শিখব। কি সবাই কি প্রস্তুত ! তাহলে চলুন শুরু করা যাক। বিদুৎ বিতরন কতৃপক্ষ বিদুৎ বিল ধার্য করার জন্য সাধারনত তাদের নির্ধারিত রীতি প্রয়োগ করেন। সাধারনত প্রবর্তিত নীতি হল বিদুৎ খরচ  যদিঃ-

  • ০০১ থেকে ২০০ ইউনিট পর্যন্ত হলে প্রতি ইউনিট = ২.৫০ টাকা.

  • ২০১  থেকে ৪০০ ইউনিট পর্যন্ত হলে প্রতি ইউনিট = ৩.৫০ টাকা.

  • ৪০১ থেকে ৫০০ ইউনিট পর্যন্ত হলে প্রতি ইউনিট = ৪.৫০ টাকা.

  • ৫০০ ইউনিট  এর উপরে হলে প্রতি ইউনিট = ৫.৫০ টাকা.

বি:দ্র: বর্তমানে ইউনিট প্রতি টাকার পরিমাণ সম্ভবত বাড়ানো হয়েছে, কি পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে তা আমার জানা নেই। তবে এটা কোন মুখ্য ব্যাপার না, আপনি যদি নিয়ম জানেন তাহলে যেকোন নীতিতে আপনি বিদুৎ বিল বের করতে পারবেন। তাই আপনাদের কাছে আমার অনুরোধ সূত্রের কন্ডিশন গুলো একটু খেয়াল করে দেখবেন। শুধু শুধু মুখস্ত করে লাভ নেই! কন্ডিশন বুঝলে সুত্র আপনি নিজেই তৈরী করতে পারবেন।

এবার নিচের মত করে একটি ডাটাবেজ  তৈরী করেন:

1

Taka: এখন আমরা উপরের ইউনিটের নীতি অনুযায়ী সবার টাকা বের করব। এখন D4 সেল মাউস পয়েন্টার নিয়ে নিম্নের সূত্র টাইপ করুন:

=IF(C4<=200,C4*2.5,IF(AND(C4>200,C4<=400),C4*3.5,IF(AND(C4>400,C4<=500),C4*4.5,C4*5.5)))   তারপর এন্টার দিন।

সূত্রগুলো একটু খেয়াল করে লেখবেন। মুখস্ত বা দেখে দেখে না লেখে একটু বুঝে লেখার চেষ্টা করবেন।

এবার দেখেন তো এরকম হয়েছে কিনা!!!

2

Wrap Text: খেয়াল করে দেখুন Service Charge দুই লাইনে লেখা আছে  । অনেক সময় Text একটু লম্বা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে আমরা যদি কলাম এর দৈঘ্য বৃদ্ধি করি তাহলে দেখা যায় যে, তা প্রিন্ট এরিয়া এর বাহিরে চলে যায়। এজন্য লম্বা লেখাকে দুই লাইনে করার জন্য Wrap Text ব্যবহার করা হয়। চলুন এবার আমরা Service Charge লেখা দুই লাইনেকরি:- প্রথমে Service Charge লেখুন,তারপর লেখাটি যে সেলে আছে তা সিলেক্ট থাকা অবাস্থায় Wrap Text এ ক্লিক করুন।

3

Service Charge: Service Charge সকলের জন্য সমান। মনে করি Service Charge হচ্ছে ১০ টাকা । তাহলে এবার E4 সেলে ১০ লেখে বাকিগুলো ডাগ্র করে ছেড়ে দিন।

VAT: মনে করি Vat হচ্ছে টাকার ৫% ।তাহলে ভ্যাট বের করার জন্য F4 সেলে মাউস পয়েন্টার নিয়ে নিম্নের সূত্র টাইপ করুন:

=D4*5% তারপর এন্টার দিন।

4

Amount To Be Paid: এবার আমরা Amount To Be Paid বের করব, অর্থাৎ সর্বমোট কত টাকা  বিল দিতে হবে। Amount To Be Paid  বের করার জন্য G4 সেলে মাউস পয়েন্টার নিয়ে নিম্নের সূত্র টাইপ করুন:-

=SUM(D4:F4) অথবা  =D4+E4+F4 তারপর এন্টার দিন। এটা ইচ্ছা করলে আপনি Auto Sum দিয়ে ও বের করতে পারেন।(Auto Sum সম্পর্কে পূর্বের টিউন এ আলোচনা করা হয়েছে)

এবার দেখেন তো এরকম হয়েছে কিনা!!!!

5

কি হয়েছে  গুড বেরি গুড। হয় নাই    আরেক বার ট্রাই করেন হয়ে যাবে ইনশা্আল্লাহ।

আজ এ পর্যন্তই । সবাই ভাল থাকবেন, সুস্থ থাকবেন।

Super tune Navigation<< মাইক্রোসফট এক্সেল এ Result Sheet Grade System (2007)এবার শিখুন কিভাবে মাইক্রোসফট এক্সেল (2007) এ Conditional Formatting করবেন==Conditional Formatting >>
FavoriteLoadingপ্রিয় পোষ্ট যুক্ত করুন

কমেন্ট করুন

You must be logged in to post a comment.