এম এ মুহিত এর সংক্ষিপ্ত জীবনী ও পর্বতজয়ের গল্প | COMILLAIT| Bangla Technology Blog | বাংলা প্রযুক্তি ব্লগ

এম এ মুহিত এর সংক্ষিপ্ত জীবনী ও পর্বতজয়ের গল্প

লেখক : | ০ টি কমেন্ট | 6 বার দেখা হয়েছে দেখা হয়েছে । শেয়ার করে আপনবর বন্ধুদের জানিয়ে দিন ।

এম এ মুহিত বা মোহাম্মদ আবদুল মুহিত – জন্ম: ৪ জানুয়ারি, ১৯৭০- বাংলাদেশী । তিনি ২০১১ খ্রিস্টাব্দের ২১ মে, দ্বিতীয় বাংলাদেশী হিসেবে এভারেস্ট জয় করেন। এর আগে ২০১০ খ্রিস্টাব্দের ২৩ মে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে মুসা ইব্রাহীমএভারেস্ট জয় করার কৃতিত্ব অর্জন করেন।মুহিত, ঐ বছরই মুসার পাশাপাশি এভারেস্ট জয়ের জন্য যান, কিন্তু বিরূপ আবহাওয়ার কারণে তিনি সেবার ব্যর্থ হন। অবশেষে বাংলা মাউন্টেনিয়ারিং এ্যান্ড ট্রেকিং ক্লাবের একজন সদস্য হিসেবে এভারেস্ট জয়ের লক্ষ্যে আবারও যাত্রা করেন ২০১১ খ্রিস্টাব্দের মার্চ মাসের শেষ সপ্তাহে, এবং অবশেষে তিনি সফল হন। তাঁর এই সফলতার খবর, ঢাকাস্থ নেপালের দূতাবাসের বার্তা দিয়ে নিশ্চিত করে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বহিঃপ্রচারণা বিভাগ।

১৯৯৭ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবরে বন্ধুদের সাথে সীতাকুন্ডের চন্দ্রনাথ পাহাড়ে বন্ধুদের মধ্যে প্রথম ১৮০০ ফুট উচ্চতায় উঠে পর্বতারোহণ নেশায় মগ্ন হন তিনি। সেই নেশাই প্রেরণা দেয় তাঁকে। ২০০৪ খ্রিস্টাব্দে এভারেস্ট বেস ক্যাম্প ও কালাপাথার ট্রেকিংয়ে অংশ নেন এবং ভারতের দার্জিলিংয়ের হিমালয়ান মাউন্টেনিয়ারিং ইনস্টিটিউট থেকে মৌলিক পর্বতারোহণ এবং একই প্রতিষ্ঠান থেকে ২০০৫খ্রিস্টাব্দে উচ্চতর পর্বতারোহণ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন তিনি।এছাড়াও প্রস্তুতি হিসেবে বিভিন্ন সময় হিমালয়ের চুলু ওয়েস্ট (মে ২০০৭), মেরা (সেপ্টেম্বর ২০০৭), বিশ্বের অষ্টম উচ্চতম শৃঙ্গ মানাসলুর (মে ২০০৮), সিংগু, ও লবুজে শৃঙ্গে আরোহণ করেন তিনি।

এভারেস্ট জয়ের আগে মুহিত, এভারেস্ট থেকে ২০ কিলোমিটার দূরে বিশ্বের ষষ্ঠ সর্বোচ্চ শৃঙ্গ চো ওয়ো(৮,২০১ মিটার) জয় করেন (২০০৯)। বাংলাদেশী পর্বতারোহীদের মধ্যে তিনিই প্রথম এই সাফল্য অর্জন করেন বলে জানা যায়।এছাড়াও তিনি দুবার বাংলাদেশের সর্বোচ্চ শৃঙ্গ তাজিনডং-এ আরোহণ করেন।

 

[তথ্যসূত্র : Wikipedia]

লেখাটি আপনাদের ভাল লেগেছে?
FavoriteLoadingপ্রিয় পোষ্ট যুক্ত করুন

১টি কমেন্ট করুন

*