ক্লাউড কম্পিউটিং এর অসুবিধা আছে কি? | প্রশ্ন – উত্তর – বিস্তারিত

সবকিছুরই ভাল ও খারাপ দিক আছে  , কেউই দুধে ধোয়া তুলসিপাতা নয় । তেমনি ক্লাউড কম্পিউটিং এর ও অসুবিধা আছে ।এটা তো আমরা ছোটবেলা থেকেই শুনে এসেছি। সেই সূত্রে ক্লাউড এরও কিছু সমস্যা আছে।

# ক্লাউড এর একটা বড় সমস্যা হল সিকিউরিটি এবং প্রাইভেসি সমস্যা। যেমন, আপনি যে কোম্পানির ক্লাউডে ডাটা রাখলেন তারা যে আপনার ডাটা দিয়ে কিছু করছেনা তার কোনো গ্যারান্টি তারা আপনাকে দিবেনা । কিছু কনফিডেনশিয়াল সেক্টর আছে যেমন, প্রতিরক্ষা সেক্টর। তারা ক্লাউড ব্যবহার করলে তাদের জন্য সুবিধা থেকে অসুবিধা বেশি। প্রথমত তারা তাদের ডাটার সর্বোচ্চ গোপনীয়তা নিশ্চিত করতে চায়। এক্ষেত্রে তারা বিভিন্ন এনক্রিপশান টেকনিক ব্যবহার করতে পারে সিকিউরিটি ইস্যু নিশ্চিত করতে। তারপরও তাদের ডাটা থেকে ছোট একটা অংশ কিংবা একটা সিঙ্গেল ইনফরমেশান দরকার হলে তাদেরকে পুরো ডাটাটাই আগে ডিক্রিপ্ট করতে হবে। এবং একটা ছোট অংশের জন্য পুরো ডাটাসেট ডিক্রিপ্ট করার পদ্ধতিগুলো যেমন সময়সাপেক্ষ, তেমন ব্যয়বহুল ও।

# আরো কিছু সমস্যা আছে যেমন, ইন্টারনেট দিয়েই যেহেতু এই পুরো সিস্টেমের সাথে কানেক্ট থাকতে হয় তো ইন্টারনেটে বলতে গেলে কোনো কিছুই ১০০% সিকিউর না। তথ্য ফাঁস কিংবা করাপ্ট হবার একটা সম্ভাবনা থেকেই যায়।

# আবার কোনো কারনে ইন্টারনেট কানেকশান না থাকলে বা খুব ধীরগতির ইন্টারনেট কানেকশন হলে ক্লাউডে কানেক্টেড থাকাও সম্ভব নয়। ক্লাউড ব্যবহারের আগে নিরবিচ্ছিন্ন ইন্টারনেট কানেকশান নিশ্চিত করতে হবে।

Author: drmasud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *