ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ ও চিকিৎসা

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ

ডেঙ্গুর লক্ষণ / ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ নিম্ন রুপ :

১. সাধারণভাবে ডেঙ্গুর লক্ষণ হচ্ছে জ্বর। ১০১ ডিগ্রি থেকে ১০২ ডিগ্রি তাপমাত্রা থাকতে পারে। জ্বর একটানা থাকতে পারে, আবার ঘাম দিয়ে জ্বর ছেড়ে দেবার পর আবারো জ্বর আসতে পারে।

২. শরীরে ও মাংসপেশিতে ব্যথা ।

৩.মাথাব্যথা ।

৪.চেখের পেছনে ব্যথা ।

৫. চামড়ায় লালচে দাগ (র‍্যাশ) হতে পারে।ডেঙ্গু জ্বর হওয়ার ৪ বা ৫ দিনের সময় সারা শরীরজুড়ে লালচে দানা দেখা যায়, যাকে বলা হয় স্কিন র‌্যাশ । অনেকটা এলার্জি বা ঘামাচির মতো।

৬. বমি বমি ভাব, এমনকি বমি হতে পারে।

৭. খাবারের রুচি কমে যায়।

তবে এগুলো না থাকলেও ডেঙ্গু হতে পারে।

ডেঙ্গু জ্বরের চিকিৎসা :

১.পর্যাপ্ত পরিমাণ বিশ্রাম নিতে হবে ।

সরকারের কমিউনিক্যাবল ডিজিজ কন্ট্রোল বা সংক্রামক ব্যাধি নিয়ন্ত্রণ বিভাগের অন্যতম পরিচালক ড. সানিয়া তাহমিনা বলেন, ”জ্বর হলে বিশ্রামে থাকতে হবে। তিনি পরামর্শ দিচ্ছেন, জ্বর নিয়ে দৌড়াদৌড়ি করা উচিত নয়। একজন ব্যক্তি সাধারণত প্রতিদিন যেসব পরিশ্রমের কাজ করে, সেগুলো না করাই ভালো। পরিপূর্ণ বিশ্রাম প্রয়োজন।”

বিবিসি বাংলা

২.প্রচুর পরিমাণে পানি ও তরল জাতীয় খাবার খেতে হবে। যেমন – ডাবের পানি, লেবুর শরবত, ফলের জুস এবং খাবার স্যালাইন গ্রহণ করা যেতে পারে।

৩. পানি জাতীয় খাবার গ্রহণ করতে হবে ।

৪. প্রচুর পরিমাণে শাকসবজি ও ফলমূল যেমন পেঁপে,আনারস,মিষ্টি কুমড়া,লেবুর রস,ডালিম, আমলকি,ডাবের পানি ইত্যাদি খেতে হবে।

৫. জ্বরের জন্য শুধুমাত্র প্যারাসিটামল খাওয়া যাবে । কিন্তু অ্যাসপিরিন জাতীয় ঔষধ খাওয়া যাবে না । কোন ব্যাথানাশক যেমন- Aspirin, Diclofenac, Rolac কোনভাবেই খাওয়া যাবে না । এতে রক্তক্ষরণের ঝুঁকি বাড়ে।

অধ্যাপক তাহমিনা বলেন, ”ডেঙ্গু জ্বর হলে প্যারাসিটামল খাওয়া যাবে। স্বাভাবিক ওজনের একজন প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তি প্রতিদিন সর্বোচ্চ চারটি প্যারাসিটামল খেতে পারবে।”

চিকিৎসকরা বলছেন, প্যারাসিটামলের সর্বোচ্চ ডোজ হচ্ছে প্রতিদিন চার গ্রাম। কিন্তু কোন ব্যক্তির যদি লিভার, হার্ট এবং কিডনি সংক্রান্ত জটিলতা থাকে, তাহলে প্যারাসিটামল সেবনের আগে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে। অ্যাসপিরিন জাতীয় ঔষধ খাওয়া যাবে না

বিবিসি বাংলা

৬. হেমোরেজিক ডেঙ্গু জ্বর ও ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোমের কোন লক্ষণ দেখা গেলে রোগীকে দ্রুত নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।

ডেঙ্গু জ্বরের লক্ষণ দেখা দিলে অনতিবিলম্বে ডাক্তার দেখানোই ভাল ।

ডেঙ্গু শক সিন্ড্রোমের লক্ষণঃ

১. হঠাৎ রক্তচাপ কমে যায়।

২. নাড়ীর স্পন্দন অত্যন্ত ক্ষীণ ও দ্রুত হয়।

৩. হাত-পা ও শরীরের অন্যান্য অংশ ঠান্ডা হয়ে যায়।

৪. প্রস্রাব কমে যায়।

৫. রোগী হঠাৎ জ্ঞান হারিয়ে ফেলে, এমনকি মৃত্যুও হতে পারে।

সোর্স :

  • https://www.bbc.com/bengali/news-49124515
  • উইকিপিডিয়া
  • https://www.facebook.com/rabbanibsl/posts/10220524371847272

Author: drmasud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *