দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি অনুচ্ছেদ | বাংলা অনুচ্ছেদ সমগ্র

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি অনুচ্ছেদ

প্রশ্নঃ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ে বাংলা অনুচ্ছেদ লিখ ।

উত্তরঃ

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি অনুচ্ছেদ

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি বলতে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধিকে বুঝায়। নিত্যপ্রয়ােজনীয় দ্রব্যের মূল্য যখন অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পায় এবং জনসাধারণের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে যায়, তখন তা প্রাইছহাইক (Price Hike) বা আকাশচুম্বী দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি’ হিসেবে পরিগণিত হয়। বাংলাদেশে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি একটি অন্যতম সমস্যা। আমাদের দৈনন্দিন জিনিসপত্রের মূল্যের কোন স্থিতিশিলতা নেই। প্রতিটি দ্রব্যের দামই দিনে দিনে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং তা বৃদ্ধি পেয়ে মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে যাচ্ছে। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির নানা কারণ আছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির একটি অন্যতম কারণ। আমাদের দেশে রমজান মাসে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি একটি স্বাভাবিক ব্যাপার। এটি এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ীদের কারসাজি। আমাদের দেশে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির জনা মূলত মজুতদারী দায়ী। বর্তমানে সিন্ডিকেট ব্যবসার কারণে মূলতঃ নিত্যপ্রয়ােজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি পায়। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির ফলে আমাদের দেশের জনগণ সীমাহীন কষ্টে জীবন যাপন করছে। নিম্ন আয়ের লােক ও গরীব মানুষ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রধান শিকার হয়ে থাকেন। দ্রব্যমূল্য ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে যাওয়ায় তারা কমদামের নিম্নমানের খাদ্য দ্রব্য কিনতে বাধ্য হয়। ফলে তারা অপুষ্টিসহ নানা রােগে ভুগে। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি জনজীবনে অসন্তোষ সৃষ্টি করে। সরকারকে নিয়মিত বাজারের মূল্য মনিটর করে মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। টি.সি.বির মাধ্যমে বেশি করে নিত্যপ্রয়ােজনীয় দ্রব্য আমদানি করতে হবে এবং প্রয়ােজনে ভর্তুকী দিয়ে কম দামে বাজারজাত করতে হবে। মজুতদার ও সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে কঠোর শাস্তি দিতে হবে। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে সরকারের কঠোর দৃষ্টিভঙ্গি ও সুষ্ঠু আইন প্রয়োগের বিকল্প নেই ।

—সমাপ্তি–

আরও জানুনঃ

সব গুরুত্বপূর্ণ বাংলা অনুচ্ছেদগুলোর তালিকা

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি সম্পর্কে আপনার মূল্যবান মতামত প্রকাশ করুন। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি অনুচ্ছেদটি কেমন লেগেছে ? এতে কি সংযোজন করা যায় বা বাদ দেওয়া প্রয়োজন বলে আপনি মনে করেন ? মন্তব্য করে জানান আমাদের ।

Author: Admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *