বিনা পরিশ্রমে প্রতিদিন বিট কয়েন জিতুন ও আয় করুন! কাজ করার পদ্ধতি সহ ১০০% ট্রাস্টেড সাইট!!

WaterLily-01-june22সবাইকে সালাম ও শুভেচ্ছা। আশা করি ভিজিটর বন্ধুরা সকলেই ভাল আছেন। আজ অন্য রকম একটি পোস্ট করতে যাচ্ছি, পোস্টটা অনেকটা ইনকাম বিষয়ক। তবে এটি কোন পিটিসি কিংবা ফ্রিল্যান্স বিয়ষক নই। আসলে আমাদের মধ্যে এমন কিছু ভিজিটর ও লেখকগণ আছেন যারা বিভিন্ন উপায়ে নেট হতে ইনকাম করে থাকেন। তার মধ্যে ইনকামের সবচেয়ে বড় বাহন হল- ফ্রিল্যান্সিং। হ্যা ফ্রিল্যান্স হিসাবে ওডেস্ক, ইল্যান্সে কাজ করে অনেকেই ভাল অবস্থানে আছেন। আসলে আমিও মাঝেমধ্যে ইল্যান্সে কাজ করে থাকি। ভেবে ছিলাম-“কুমিল্লা আ্‌ইটি” প্রযুক্তি ব্লগে ইল্যান্স নিয়ে কয়েকটি পর্বে পোস্ট করব। কিন্তু ৭/৫ কারনে তা হয়ে উঠেনি। এর অন্যতম কারন হচ্ছে- এই বিষয়ে বিভিন্ন ব্লগ সাইটে বিভিন্ন লেখকগণ অনেক রিভিউ দিয়েছেন, তাছাড়া অনেকেই হয়ত প্রশিক্ষণও নিয়েছেন, এমনকি বাজারেও এই বিষয়ে বেশ কিছু বই পাওয়া যায়।

অপরদিকে অনেকে সার্ভে বা পিটিসি সাইটে কাজ করেন। তবে এখানে খুব বেশী ইনকাম করা যায় না, মামুলি বিষয়ক। যাইহোক আমি নিজেও পিটিসিতে কাজ করিনা, অপরকেও এই ব্যাপারে সাজেস্ট করতে চাচ্ছি না।

তবে আজকে আপনাদেরকে একটি নতুন সাইটে কাজ করার ধারনা দিব, যাহা পোস্টের শিরোনামে পূর্বেই বলেছি। এখানে কাজ করাটা খুবই সহজ। পূনরায় বলছি এটা কোন ফ্রিল্যান্স, পিটিসি বা কোন জবের সাইট নই। এটা একটি বিট কয়েন বিষয়ক সাইট। অবশ্য ফ্রিল্যান্স বলে কেউ ভূল করবেন না। এখানে ফ্রিল্যান্স সাইটের মত টাকার পাহাড় না হলেও নেহাত মন্দ নই, তবে অনেক আসল পিটিসি সাইট হতে ভাল। আমার অভিজ্ঞাতে মনে হয়- বিট কয়েন সাইটের ইনকামের মত অত সহজ রাস্তা এখনও হয়নি।

প্রথমে জেনে নিই বিট কয়েন কি?

বিটকয়েন হল ওপেন সোর্স ক্রিপ্টোগ্রাফিক প্রোটকলের মাধ্যমে লেনদেন হওয়া সাংকেতিক মুদ্রা। বিটকয়েন লেনদেনের জন্য কোন ধরনের অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান, নিয়ন্ত্রনকারী প্রতিষ্ঠান বা নিকাশ ঘরের প্রয়োজন হয় না। ২০০৮ সালে সাতোশি নাকামোতো এই মুদ্রাব্যবস্থার প্রচলন করেন। বিটকয়েনের লেনদেন হয় পিয়ার টু পিয়ার বা গ্রাহক থেকে গ্রাহকের কম্পিউটারে বা মোবাইলে । বিটকয়েনের সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয় অনলাইনে একটি উন্মুক্ত সোর্স সফটওয়্যারের মাধ্যমে অথবা কোন ওয়েব সাইটের মাধ্যমে ।
বর্তমানে ১টি বিটকয়েনের মূল্য প্রায় ৪৮৫.৩৬ ডলার ।
অর্থাৎ 1 BITCOIN = $485.36 !!!

বিট কয়েন এর উপযোগীতা:

Coin-05-june1১। বিট কয়েন পদ্ধতি অনেকটা নতুন বিষয়। এটাও এক ধরনের পেইজা, পেপাল, মানি বুকার্স এর মত বিট কয়েন লেনদেন পদ্ধতি বা গেট ওয়ে। বর্তমানে পৃথিবীর অনেক দেশেই বিভিন্ন গেটওয়ে পেমেন্ট প্রসেস হিসাবে অনেক সাইটে বিট কয়েন পদ্ধতি যুক্ত করা হয়েছে। ইউরোপ, অআমেরিকা উন্নত দেশেই অল্প সময়েই বিট কয়েন পদ্ধতি জনপ্রিয়তা অর্জন করে নিয়েছে। খুব বেশী একটা সময় হয়ত নাই, যেখানে সমগ্র দেশে বিট কয়েন্ট পদ্ধতি চালু হয়ে যাবে। সম্প্রতি বাংলাদেশে অনেকেই বিট কয়েন আয় করছেন।

৩। এর মাধ্যমে যে কোন জায়গাতে পেমেন্ট পরিশোধ, বিল প্রদান, বেতন-বোনাস দেওয়া যাবে। তাছাড়া বিট কয়েন মোবাইলে, ব্যাংক একাউন্ট কিংবা অন্য মাস্টার কার্ডে ট্রান্সপার করতে পারবেন।

৪। অন্য কোন শেয়ার মার্কেট কিংবা বিট কয়েন মার্কেটে এটা বিক্রয় করতে পারবেন।

বিটকয়েনএকাউন্টঃ

আপনাকে প্রথমে একটি বিটকয়েন অ্যাড্রেস তৈরি করা লাগবে । এই অ্যাড্রেস সাধারনত ৩৪ Character -এর হয় । এই কারনেই এটা এতো বেশি সিকিউর । এটা মূলত বিট কয়েন গেটওয়ে পেমেন্ট প্রসেস বলা হয়ে থাকে। অর্থাত আপনি যে কোন সাইট হতে বিট কয়েন আয় করুন না কেন, এখানে সমস্ত বিট কয়েন আয় যুক্ত হয়ে যাবে। পরবর্তীতে এখান হতে সুবিধামত উইথ ড্র করতে পারবেন।

কিভাবে একাউন্ট ওপেন করবেন:

১। প্রথমে এইলিঙ্কে যান এরপর নিচের মত একটা পেজ আসবে

ScreenShot004

২। Email (1) এর বক্সে আপনার মেইল অ্যাড্রেস এবং Password(2) এর বক্সে আপনার পাসওয়ার্ড দিয়ে Create Bitcoin Wallet (3) লিঙ্কে ক্লিক করুন

৩। এরপর আপনাকে ইমেইল অ্যাড্রেস ভেরিফাই করেত বলবে।আপনার ইমেইলঅ্যাড্রেসেযানএবং Verify My Email Address-এক্লিককরুন।এরপর নিচের মত একটা পেজ আসবে। (যদিনা আসে তাহলে wait করুন তাহলে আসবে )।

ScreenShot002

৪।এখানথেকে Setting(1) থেকে Bitcoin Addresses(2) এর উপরে ক্লিক করলে নিচের মতএকটা পেজ আসবে। এরপর Create New Address(3) করে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। নিচের মত একটা অ্যাড্রেস তৈরিহবে। এটাকে সেভ করে অথবা কপি করে রাখুন পরে কাজে লাগবে।

ScreenShot003

৫। চাইলে একাউন্টটি আপনি ভ্যারিফাইড করে নিতে পারেন মোবাইল নং দ্বারা। এই জন্য একাউন্ট লগইন করে Verify a Phone অপশনে ক্লিক করুন। একটি বার্তা আপনার মোবাইলে যাবে। সেখানের প্রেরিত কোডটি এখানে ইনপুট করে দিলেই হবে।

বিট কয়েন আয়ঃ

নিয়মাবলী:

প্রথম তো বিট কয়েন গেটওয়ে একাউন্ট তৈরি করলেন অনেকটা পেইজার মত। এবার তো আয় করতে হবে। আসলে বিট কয়েন নিয়ে আয় করার অনেক সাইট দেখেছি। কোনটিই আমার তেমন পচ্ছন্দ হয়নি। যে কয়টি সাইট দেখেছি অনেকটাই স্ক্যাম। অর্থাত বিট কয়েন নাম দিয়ে ব্যবসার ফায়দা লুটছে। তাছাড়া নিজে পর্যবেক্ষনে অআছি। যদি তেমন ভাল সাইট পাই তাহলে পরবর্তী পোস্টে জানাব। তবুও মন খারাপের কোন কারন নাই। ফ্রিভাবে বিট কয়েন পাবার জন্য আপনাদের এমন একটি সাইটের লিংক দিব যেখানে প্রতি ঘন্টাতে বিট কয়েন পাবেন কোন রকম কাজ ছাড়াই!!

১। প্রথমে এইলিঙ্কে যান নিচের মত একটা পেজ আসবে

এখান থেকেঃ (১নং অংশে)
Your Bitcoin Address – এ কিছুক্ষণ আগে যে বিটকয়েন অ্যাড্রেস তৈরি করলেন সেটা দিন ।
Password For Your Account – এখানে আপনার পাসওয়ার্ড দিন ।
Repeat Password – এখানে পুনরায় একই পাসওয়ার্ড দিন ।
Your Email – এখানে আপনার ইমেইল দিন ।
ব্যাস এরপর SIGN UP বাটনে ক্লিক করুন । আপনার একাউন্ট হয়ে গেছে । ইমেইল ভেরিফাই করা লাগবে না ।

ScreenShot010

২।এরপর ও পরের চিত্রে ২নং চিহ্নিত অংশের ঘরগুলো পুরনকরুন এবং কেপচাদিয়ে LOGIN বাটনে ক্লিককরুন। এরপর নিচের মত পেজ আসবে। এরপর ১নং চিহ্নিত অংশের কেপচা দেখে ২নংচিহ্নিত বক্স পূরণ করে ROLL!(3) এ-ক্লিক করুন।

ScreenShot011

৩। এরপর যদি নিচের চিত্রের মত টাইমার(2) উঠা শুরু করে তাহলে আপনি Success ।আরযদি Invalid Code লেখা আসে তাহলে আবার TRY করুন হয়ে যাবে।এভাবে প্রতি ঘণ্টায় আপনি বিটকয়েন আর্ন করতে পারবেন। আবার১ঘন্টা পর আসুন এবং কেপচা পূরণ করে  ROLL-এ ক্লিক করুন। দেখবেন একাউন্টে বিট কয়েন যোগ হয়েছে। এভাবে ১ঘণ্টা পরপর ওয়েবসাইটে যান এবং আর্ন করতে থাকুন। নিচের চিত্রে দেখুন ৩নংচিহ্নিত অংশে আমার আর্ন দেখাচ্ছে।

ScreenShot009

পেমেন্টঃ

এবার আসি পেমেন্টের কথায় । এটা  ১০০% পে করে কারন আমি দুইবার পেমেন্ট পেয়েছি ।
এরা প্রতি সোমবার পে করে । আপনার একাউন্ট Balance যদি 0.00005460 বিটকয়েনের বেশি হয় তাহলে সেটা অটোমেটিকভাবে সোমবারে আপনার একাউন্টে চলে যাবে । আপনার কিছু করতে হবে না ।
আর হ্যাঁ আপনি রেফার করেও আর্ন করতে পারবেন । আপনার Homepage-থেকে Refer বাটনে ক্লিক করলে আপনার রেফারেল লিঙ্ক দেখতে পারবেন ।

যেমন এই পোস্টটি করেছি আমি নিজে পরীক্ষা করে।আমার একাউন্ট মাত্র ৩ দিন পূর্বে ওপেন করি। গতকালকে পেমেন্ট পাইলাম। যেহেতু ফ্রিল্যান্স ও ব্লগ করার জন্য আমাকে মাঝেমধ্যে নেটে ১০-১৪ ঘন্টা থাকতে হয়। তাই এই সুযোগটা কাজে লাগাই। তেমন আপনিও লাগাতে পারেন। কেননা-

১। অন্য কোন পিটিসি সাইটের মত সময় নষ্ট হচ্ছে না। কিংবা ক্লিক করতে হচ্ছেনা। ফ্রিল্যান্স করার সাথে সাথেই উক্ত কাজটি করতে পারবেন। শুধুমাত্র প্রতি ঘন্টাতে ক্যাপচা পূরন করলেই হলো। অনেক ফ্রিল্যান্সার গণ বিট কয়েন হতেও আয় করছেন।

২। কোন কাজ না করলেও একাউন্ট ডিলেট কিংবা নষ্ট হবার ভয় নাই।

৩। যরা অল্প মেগাবাইট ব্যবহার করছেন। তারা প্রতি ঘন্টাতে এই সাইটে প্রবেশ করে কাজ শেষ হবার পর নেট কানেকশন বন্ধ করে দিন। অতপর পূনরায় একই কাজ করুন। মূল কথা সর্বদা নেট কানেকশন অযথা চালু করার প্রয়োজন নাই।

৪। এখনো যেহেতু ইউজার কম। সেহেতু এই সাইট বোধ হয় ফ্রিভাবে বিট কয়েন দিচ্ছে। পরবর্তীতে হয়ত কি হবে কে জানে! তাই মনে হয় সময় থাকতে বিট কয়েন অর্জন করতে সমস্যাটা কোথায়?

৫। এখানে কোন ইনভেস্ট, ডোনেট এমন কিছুর শর্ত নাই।

আমার বিট কয়েন পাবার পেমেন্ট প্রুফ (গতকাল ইমেইলে পেয়েছি):

ক। ScreenShot014

ScreenShot012

new_peaceতাহলে বন্ধুরা। আজ এই পর্যন্তই! বিট কয়েক কি এবং কিভাবে উপার্জন করতে তা হয়ত এই টিউটোরিয়াল অনুযায়ী নিজেই প্রতিটি ধাপে কাজ করতে পারবেন। সুতরাং অন্যান্য কাজের সাথে বিনা-পরিশ্রমে বিট কয়েন অআয় করুন এবং বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করুন। ও হ্যা আরেকটি কথা বলতে ভূলে গেছি। কয়েন বেজ হতে কিভাবে বিট কয়েন উপার্জন উত্তলোন করবেন তা অন্যকোন দিন দেখিয়ে দিব। সেই পর্যন্ত ইনকাম করতে থাকুন কিংবা বিট কয়েন অর্জন করুন। কেননা, আমি তো আপনাদের সাথে আছিই। এই পোস্ট সম্পর্কে কোন সমালোচনা, পরামর্শ থাকলে কমেন্ট করতে পারেন। – সবাই ভাল থাকুন!!

———————————————————————————————————————————————-

(পোস্টটি পিসি হেল্প লাইন বিডি হতে নেওয়া হয়েছে, মূল লেখক: এমডি আব্দুল্লাহ্)

Author:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *