মাইক্রোসফট এক্সেল এ Result Sheet Grade System (2007)
আই-টেকার :: drmasud 247 টি আই-টেক

যে জানে তাকে তো বলার কিছু নেই!! আর আমার মত যারা জানেন না - সব না জানা শেয়ার করার মজাই ভিন্ন।। অল্প-স্বল্প যা জানি ও অন্যে ব্ন্ধৃগন যা জনেন তা সবার মাঝে জানানোই আমার __লক্ষ ।। নিজের লেখালেখি-- http://www.medicineinformer.com

মাইক্রোসফট এক্সেল এ Result Sheet Grade System (2007)

আই-টেকারঃ|বিভাগঃমাইক্রোসফট এক্সেল|প্রকাশিত সময়:জুন ১৯, ২০১৩|০ টি কমেন্ট| ১,৩২৯ বার
এই টিউনটি সুপার টিউন মাইক্রোসফট এক্সেল এর 10 টি পর্বের 15 তম টিউন

Result Sheet Grade System

—————————————————————————

এবার চেষ্টা করি  আমরা কিভাবে গ্রেডিং সিস্টেম এ একটি রেজাল্ট শীট তৈরী করব। চলেন এবার গ্রেডিং সিস্টেমের নিয়ম গুলো দেখে নেই:

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৮০ নম্বেরর উপরে হলে হবে A+ Grade

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৭০-৭৯ নম্বেরর মধ্যে হলে হবে A Grade

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৬০-৬৯ নম্বেরর মধ্যে হলে হবে A- Grade

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৫০-৫৯ নম্বেরর মধ্যে হলে হবে B Grade

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৪০-৪৯ নম্বেরর মধ্যে হলে হবে C Grade

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৩৩-৩৯ নম্বেরর মধ্যে হলে হবে D Grade

  • মোট প্রাপ্ত নম্বর  ৩৩ নম্বেরর নিচে হলে অকৃতকার্য বা Fail.

এবার নিচে মত করে একটি ডাটাবেজ তৈরী করুন:

1

প্রথমে A1 থেকে M1 পর্যন্ত সেলকে সিলেক্ট করে Merge Cell করে ফেলুন, তারপর টাইপ করুন Result Sheet Grade System । (Merge Cell নিয়ে আগের টিউন এ আলোচনা করা হয়েছে)।

লক্ষ্য করে দেখুন লেখা গুলো ভার্টিক্যালি রয়েছে। এক্সেলে আমরা যেকোন লেখাকে বিভিন্ন angle এ  লিখতে পারি । যে লেখাকে আপনি angle  করবেন ঐ লেখাকে সিলেক্ট করে Home Menu এর Orientation থেকে লেখাকে Angle বা Vertical করুন।

2

3

Average: Average বের করার জন্য সেল পয়েন্টারটিকে L3 সেল এ রাখুন। তারপর নিম্নের সুত্র টাইপ করুন:

=AVERAGE(C3:K3) তারপর এন্টার দেন।

এ কাজটি আপনি Auto Sum দিয়ে ও করতে পারেন । Auto Sum নিয়ে আমি পূবের টিউন এ আলাচনা করেছি।

4

Grade: এবার আমরা আমাদের আসল কাজটি করব গ্রেড বের করব। গ্রেড বের করার জন্য সেল পয়েন্টারটিকে M3 সেল এ রাখুন । তারপর নিম্নের সূত্র টাইপ করুন:

=IF(OR(C3<33,D3<33,E3<33,F3<33,G3<33,H3<33,I3<33,J3<33,K3<33),

“Fail”,IF(L3>=80,”A+”,IF(L3>=70,”A”,IF(L3>=60,”A-“,IF(L3>=50,”B”,IF(L3>=40,”C”,IF(L3>=33,”D”,IF(L3<33,”F”))))))

তারপর  এন্টার দিন। সূত্রটি কিছুটা লম্বা তাই দুই লাইনে দিলাম । লক্ষ্য রাখবেন সূত্রের মাঝখানে কোন স্পেস হবে না । আর এটা হচ্ছে  ( ” ) ডাবল কোটেশন, কখন ভুলে সিঙ্গেল কোটেশন দিবনে না তাহলে সুত্র ভূল দেখাবে । মূলত ডাবল কোটেশনের ভিতর যা লেখা হয়, তাই ফলাফলে প্রদর্শিত হয়।

দেখেন তো এরকম হয়েছে কিনা–

5

তাড়াহুড়া করবেন না।

Super tune Navigation<< Salary Sheet তৈরী।।মাইক্রোসফট এক্সেল (2007) লার্নিং(৫ম)এবার শিখুন কিভাবে Electric Bill তৈরী করতে হয়।।মাইক্রোসফট এক্সেল (2007) লার্নিং জোন >>
FavoriteLoadingপ্রিয় পোষ্ট যুক্ত করুন

“ টেক প্রতিযোগিতা ” আয় করুন পোষ্ট লিখে

কমেন্ট করুন

You must be logged in to post a comment.