হেবার বস পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়া উৎপাদন | বিক্রিয়া ও ছবিসহ ব্যাখা

হেবার বস পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়া উৎপাদন ,হেবার পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়া,অ্যামোনিয়ার পরীক্ষাগার প্রস্তুতি,অ্যামোনিয়া প্রস্তুতি,শিল্প পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়া প্রস্তুতি,শিল্প পদ্ধতিতে NH3 প্রস্তুতি, ইত্যাদি এর নাম।

হেবার বস পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়া উৎপাদন/শিল্প পদ্ধতিতে NH3 প্রস্তুতি/Haber process :

হেবার বস পদ্ধতিতে অ্যামোনিয়া উৎপাদন

বিক্রিয়া হতে দেখা যায়,

  • বিক্রিয়াটি তাপোৎপাদী
  • বিক্রিয়াটি আয়তনের সংকোচন ঘটে
  • বিক্রিয়াটি উভমুখী।

লা শাতেলিয়ারের নীতি অনুসরণ করে সর্বোচ্চ পরিমাণ অ্যামোনিয়া উৎপাদনের ক্ষেত্রে নিম্ন তাপমাত্রায়, উচ্চচাপে, প্রভাবক ব্যবহারে এবং উৎপাদককে দ্রুত বিক্রিয়াস্থল হতে অপসারণ করে সর্বোচ্চ পরিমাণ অ্যামোনিয়া উৎপাদন করা যেতে পারে।

১.তাপমাত্রার প্রভাব : সমীকরণ থেকে দেখা যায় এটি তাপােৎপাদী বিক্রিয়া। তাপােৎপাদী বিক্রিয়ার ক্ষেত্রে তাপমাত্রা হ্রাস করলে এ হ্রাসের ফলাফল প্রশমিত করার জন্য লা-শাতেলিয়ারের নীতি অনুসারে সাম্যাবস্থার অবস্থান ডান দিকে সরে গিয়ে অ্যামোনিয়া উৎপাদন বৃদ্ধি করবে। তাই নিম্ন তাপমাত্রায় বিক্রিয়াটিকে পরিচালিত করা উচিত। কিন্তু পরীক্ষা করে দেখা গেছে নিম্ন তাপমাত্রায় বিক্রিয়ার গতিবেগ হ্রাস পায় বলে অ্যামোনিয়া উৎপাদনের হার কমে যায়। তাই খুব নিম্ন নয় আবার খুব উচ্চ নয় এমন অত্যানুকল তাপমাত্রায় (450° – 500°C) বিক্রিয়া কে পরিচালনা করা হয়। এ তাপমাত্রায় বিক্রিয়ার হারকে আরও বৃদ্ধি করার জন্য প্রভাবক হিসেবে Fe(আয়রন) এবং প্রভাবক সহায়ক হিসেবে Mo কে ব্যবহার করা হয়।

২.চাপের প্রভাব : অ্যামোনিয়া উৎপাদনে সাম্য বিক্রিয়া হতে দেখা যায়, এক মােল N2 ও তিন মােল H2 এর বিক্রিয়ায় দুই মােল NH3 উৎপন্ন হয় । অর্থাৎ বিক্রিয়াটিতে আয়তনের সংকোচন ঘটে। লা-শাতেলিয়ারের নীতি অনুসারে গ্যাসীয় বিক্রিয়ায় আয়তনের হ্রাস পেলে অতিরিক্ত আরােপিত চাপ আয়তনের এ হ্রাসকে প্রশমিত করে দেয়। অতিরিক্ত আরােপিত চাপ প্রয়ােগের ফলে আয়তনের হ্রাস করে সাম্যের অবস্থান ডান দিকে সরে যায় অর্থাৎ NH3 এর উৎপাদন বৃদ্ধি পায়। এক্ষেত্রে 200 বায়ুচাপ প্রয়ােগ করে সর্বোচ্চ পরিমাণ অ্যামোনিয়া উৎপাদন করা সম্ভব হয়। আরও উচ্চ চাপ প্রয়ােগ করলে অ্যামোনিয়া উৎপাদন পরিমাণে বৃদ্ধি ঘটবে কিন্তু অতি উচ্চ চাপ প্রয়ােগ ব্যয়বহুল বিধায় 200 বায়ুচাপই অত্যানুকূল চাপ।

৩.প্রভাবকের প্রভাব : উভমুখী বিক্রিয়ায় প্রভাবকের সম্মুখ এবং বিপরীত উভয় বিক্রিয়াকেই সমানভাবে প্রভাবিত করে বলে রাসায়নিক সাম্যের কোনাে পরিবর্তন ঘটায় না। কিন্তু প্রভাবক বিক্রিয়ার বেগ বাড়িয়ে তাড়াতাড়ি সাম্যাবস্থা আনে সেজন্য উপযুক্ত চাপে 550°C তাপমাত্রায় বিক্রিয়ার বেগ যথেষ্ট বাড়ে এবং অ্যামােনিয়ার উৎপাদন দ্রুত হয়।

৪.ঘনমাত্রার প্রভাব : লা শ্যাতেলিয়ারের নীতি অনুযায়ী বিক্রিয়ক পদার্থগুলাের ঘনমাত্রা বাড়ালে এবং বিক্রিয়াজাত পদার্থের ঘনমাত্রা কমালে সম্মুখ বিক্রিয়া হয়। এ বিক্রিয়ায় যদি অ্যামােনিয়ার ঘনমাত্রা কমানাে হয় তবে বিক্রিয়াটি সম্মুখের দিকে হয়। সেজন্য অ্যামােনিয়া উৎপন্ন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিক্রিয়া প্রকোষ্ঠ থেকে সরিয়ে ফেলা হয়। ফলে বিক্রিয়া সম্মুখ দিকে হতে থাকে এবং অ্যামােনিয়ার উৎপাদন বৃদ্ধি পায়।

Author: Shahriar Ahmed Biddut

I am a student , freelancer, blogger, web designer and WordPress Developer .I have learnt HTML5 , CSS3 , Javascript , Bootstrap , Jquery & Bootstrap for designing purposes and php & mysql for backend development . I also use elementor to design wordpress pages.

Leave a Reply