২০১৬ তে নাভানা ইঞ্জিনিয়ারিং এর নতুন মাত্রা

বাড়ি বানিয়েছেন অথচ পাইপ এবং ফিটিংস নিয়ে চিন্তা (দুঃচিন্তা বলাই ভালো) করতে হয়নি এমন মানুষ  খুজে পাওয়া প্রায় অসম্ভব একটা বিষয়। ভালো লাগার বিষয় হলো বাংলাদেশেই এখন তৈরী হচ্ছে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন পাইপ-ফিটিংস পন্য। আর এই শিল্পে বাংলাদেশের অন্যতম পথিকৃৎ নাভানা ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড বর্তমানে দেশব্যাপী বাসা-বাড়ি, কৃষিতেসেচ, পানির লাইন সহ বিভিন্ন জায়গায় পানি সরবরাহের পরিবেশ বান্ধব পাইপ-ফিটিংস বাজারজাত করছে।   শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক মেলায় নাভানার স্টলে গিয়ে এমনটা দেখা গেল। প্রতিষ্ঠানটির প্রজেক্টকো-অর্ডিনেটর ইঞ্জিনিয়ার শুভাশীষ ভৌমিক জানালেন, নাভানার প্রতিটি পণ্যই অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি। তাই এর স্থায়িত্ব ও অনেক বেশি।   ‘এছাড়া নাভানা একই মানের গৃহস্থলীর প্লাস্টিক পণ্য উৎপাদন ও সরবরাহ করছে। এসব পণ্য গ্রাহকদের বেশ নজর কেড়েছে।’   বাংলাদেশ প্লাস্টিক গুডস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিজিএমইএ) উদ্যোগে ৪ দিন ব্যাপী এ মেলার আয়োজন করেছে। শনিবার ছিল মেলার শেষ দিন।   সরেজমিনে দেখা যায়, স্টলটিসাজানো হয়েছে নাভানারপাইপ ও ফিটিংস দিয়ে।পাই পদিয়েযে একটি স্টল সাজানো যায়তা এটি না দেখলে তা বোঝার উপায় নেই। সুন্দর সাজসজ্জার জন্য স্টলটি বেষ্টকেটা গরিতে তৃতীয় হয়েছেন আর সাজসজ্জার দায়িত্বে ছিল থ্রিপিকমিউনিকেশন।   দর্শনার্থীদের জন্য নানা ধরনের খেলার আয়োজন করা হয়েছে; স্টলের পাশেই ছিল গলফ খেলার আয়োজন।অন্য পাশে পণ্যের নানা তথ্যও প্রদর্শনী করা হয়।   সংশ্লিষ্টরা জানান, মেলা উপলক্ষে ক্রেতাদের জন্যও বান্ডেল অফার দিয়েছে নাভানা।তবে স্টলের মূল উদ্দেশ্য ছিল- গ্রাহকদের কাছে নাভানার পণ্যের প্রচারণা চালানো।  ক্রেতাদের আগ্রহের বিষয়টি মাথায় রেখে এ বান্ডেল অফার দেওয়া হয়েছে।  স্টলের দায়িত্ব রত কর্মীরা জানান, ২০১০ সাল থেকে নাভানা ইঞ্জিনিয়ারিংলিমিটেড পাইপ ও ফিটিংস উৎপাদন করছে।এসব সেচের পাশাপাশি এসব পাইপ-ফিটিংস ঘর-বাড়ি নির্মাণেও মানুষের চাহিদা মেটাচ্ছে।   নাভানার পণ্যের গুণগতমান নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা শুভাশীষ ভৌমিক জানান, পাইপ তৈরির সব ধরনের কাঁচামাল বিদেশ থেকে আনা হয়।এরপর উন্নত প্রযুক্তিতে দেশে এসব পাইপ তৈরিকরেন দক্ষকারিগরেরা।   ‘যার গুণগতমান বাজারে প্রচলিত অন্য পাইপের চেয়ে অনেক ভালো। দামেও বেশ সাশ্রয়ী,’ বলেন তিনি।   শুভাশীষ জানান, মানসম্মত ও পরিবেশ বান্ধব পণ্য তৈরির জন্য যুক্তরাজ্য (ইউকে) থেকে ওয়াটার রেগুলেশনস অ্যাডভাইজরিস্কিম লিমিটেডের (ডব্লিউআরএএস) সার্টিফিকেট ছাড়াও আইএসও সনদ অর্জন করেছে নাভানা  ইঞ্জিনিয়ারিংলিমিটেড।  এবার বছরের শুরু থেকে ওয়াটারপাম্প ও রান্নাঘরের সিংক, কিচেন স্টোভ নিয়ে বাজারে হাজির হয়েছে নাভানা। গৃহস্থলীর পণ্যের মধ্যে বালতি, টুল, গামলা, হ্যাঙ্গার, লন্ড্রি, ওয়েস্ট পেপার বাস্কেট সহ নানা পণ্য  উল্লেখযোগ্য বলে জানান তিনি।   বাংলাদেশে নাভানার এই অগ্রযাত্রা ছড়িয়ে যাক বিশ্বময়, নাভানার পাইপে ভর করে আকাশে ডানা মেলুক লাল-সবুজের পতাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *