SEO অন-পেজ অপটিমাইজেশন বিস্তারিত – এসইও

 

অন পেজ অপটিমাইজেশন কি?

সাধারন ভাবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কে আমরা ২ ভাগে ভাগ করতে পারি।

  • ১. অন পেজ অপটিমাইজেশন (On-Page Optimization)

  • ২. অফ পেজ আপটইমাইজেশন (Off-Page Optimization)

প্রথমে অমাদের ভাবতে হবে আমরা ওয়েব পেজে কি কি কাজ করে থাকি। সাধারন ভাবে আপনার উত্তর হতে পারে লেখা লেখি করি, ছবি বসাই, গান আপলোড করি ফ্লাশ মিডিয়া বসাই ইত্যাদি। প্রায় ৭০% নতুন ওয়েব ডিজাইনাররা এসব নিয়েই ব্যস্ত থাকে।কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে এসব বিষয় গুলো প্রধানত প্রধান্য পায় না।এসকল বিষয়কে সার্চ ইঞ্জিনের জন্য উপযোগী করাই হল অন-পেজ অপটিমাইজেশন।ওয়েব পেজে বিভিন্ন ধরনের ট্যাগ ব্যবহার করা,কনটেন্ট লেখায় কলাকৌশল,লিংকের ব্যবহার,ইত্যাদি করে অন-পেজ অপটিমাইজেশন করা হয়।

সার্চ ইন্জিন অপটিমাইজেশন (এস ই ও) কাকে বলে জেনেন কি?

অন-পেজ অপটিমাইজেশন এর বিষয়বস্তু

বেশ কিছু মৌলিক বিষয় নিয়ে অন পেজ অপটিমাইজেশন করা হয়।যেসব বিষয় গুলো সম্পর্কে আপনার জানা থাকলে আপনার অন-পেজ অপটিমাইজেশন করতে সুবিধা হয়।আসুন দেখে নিই অন-পেজ অপটিমাইজেশনে কি বিষয় অন্তভুক্ত থাকে

  • ১. মেটা ট্যাগের ব্যবহার

  • ২. টাইটেলে ট্যাগের ব্যবহার

  • ৩. কী-ওয়ার্ড ট্যাগের ব্যবহার

  • ৪. Description ট্যাগের ব্যবহার

  • ৫. ALT ট্যাগের ব্যবহার

  • ৬. h1-h6 ট্যাগের ব্যবহার

  • ৭. পেজ – ফাইলের নামকরন

  • ৮. কী ওয়ার্ড সমৃদ্ধ কনটেন্ট বনানো

  • ৯. XML Sitemaps তৈরী করণ ইত্যাদি।

এসকল বিষয় গুলোকে যদি আপনি আয়ত্তে আনতে পারেন তাহলে ফলাফল আপনার হাতের মুঠোয়।আসুন এবার এসব বিষয় নিয়ে একটু ফুটবল খেলি।

১. মেটা ট্যাগ

মেটা ট্যাগ হল HTML এর এমন কিছু ট্যাগ যে গুলো আপনার ওয়েব সাইটের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলোকে সার্চ ইন্জিনের কাছে প্রকাশ করে থাকে।এসকল ট্যাগের মধ্যকার লেখা গুলো ব্রাউজারে প্রকাশ পায় না (টাইটেল ট্যাগ বাদে) কিন্তু এই ট্যাগ ব্যবহারের ফলে সার্চ ইন্জিন বা অন্য ওয়েব ডেভলপাররা জানতে পারে ওয়েব সাইটের লেখক ,ওয়েব সাইট তৈরীর তারিখ, শেষ আপডেট করার সময় ইত্যাদি। তবে সকল ট্যাগ গুলো SEO তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয় যতটা টাইটেলে,কী ওয়ার্ড,Description ট্যাগ গুলো। এই ৩টি ট্যাগ SEO জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ মূলত আমরা এই তিনটি বিষয় নিয়েই আলোচনা করব।

মেটা ট্যাগ ব্যবহারের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা

এতোক্ষণ ধরে মেটাট্যাগ নিয়ে আমি যে বকবকানি করলাম হয়তো মনে আসতে পারে মেটা ট্যাগের প্রয়োজনীয়তা সমন্ধে।আসুন জেনে নিই কি জন্য মেটা ট্যাগের গুলো এতটা গুরুত্বপূর্ণ SEO এর জন্য।

মেটা ট্যাগ ২টি কারণের জন্য SEO তে গুরুত্বর্পর্ণ বিষয় হয়।

  • ১. মেটা ট্যাগ SERPs (Search Engine Result Page) সার্চ ইঞ্জিনের রেজাল্টের পেজে সাইটের তথ্য সরবারাহ করতে সাহায্যে করে।

  • ২. মেটা ট্যাগের মাধ্যমে আপনার ওয়েব সাইটকে SEO তে ভাল স্থানে রাখার পাশাপাশি সাইটের অন্যান্য অংশ বিভিন্ন ভিজিটরদের কাছে প্রকাশ পায়।

    এবার আসি মেটা ট্যাগের বর্ণনায়।

২. টাইটেল মেটা ট্যাগের ব্যবহার

টাইটেল মেটা ট্যাগ মানে বোঝাই যাচ্ছে এটা ব্যবহারিত হয় আপনার ওয়েব সাইটের শিরোনাম বা টাইটেল দেবার জন্য। এসইও তে টাইটেল মেটা ট্যাগ বিশেষ কোন কাজে আসে না। তবে একটি সুন্দর টাইটেল আপনার সাইটে অধিক ভিজিট (CRT) বাড়তে পারে।

আপনার পছন্দের কী- ওয়ার্ডের দ্বারা টাইটেল ট্যাগ লেখার সময় কিছু কিছু বিষয় মাথায় রেখে কাজ করলে এইসও তে সৌন্দর্য আরো বৃদ্ধি হবে। যেমনঃ-

  • ১. টাইটেলকে ৬৫ অক্ষরের মধ্যে রাখুন।

  • ২. যথাসম্ভব ছোট করে টাইটেল দিন, আবার বেশি ছোট করতে গিয়ে অদ্ভুত করে ফেলার দরকার নেই।টাইটেল আপনার দেয়া টার্গেটকৃত কীওয়ার্ডটি ব্যবহার করুন।

  • ৩. এ ধরণের চিহ্ন যেমন- ( @, #,!,%,^,() ….) ইত্যাদি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

  • ৪. টাইটেল ট্যাগটিকে এমন ভাবে লিখবেন যাতে করে যে কেউ আপনার টাইটেল পড়ে সাইটে প্রবেশ করতে আগ্রহী হয়।

যেমন :আপনার সাইটি যদি Hinid Movie কী- ওয়ার্ড দিয়ে বানানো হয় তাহলে ভিজিটররা হিন্দি মুভি সম্পর্কে জানার জন্য ভিজিট করবে।সেখানে যদি আপনি টাইটেলর সাথে কেবল মাত্র Download কথাটি মিলিয়ে Download Hindi Movie করে দেন তাহলে আপনার সাইট যদি ২-৫ নম্বরের মধ্যেও থাকে তবে আপনি অন্যদের তুলনায় বেশি ভিজিটর পেতে পারেন।

৩. কী-ওয়ার্ড ট্যাগের ব্যবহার

কী-ওয়ার্ড ট্যাগ হল আপনার সাইটে যেসকল কী-ওয়ার্ড ব্যবহার করেন তার একটা সূচিপত্র হিসাবে কাজ করে থাকে। ১০০% এসইওর মধ্যে ১৫.০৪% স্থান কিন্তু কম নয়।তাই বলা যায় সাইটের ব্যবহারিত কী-ওয়ার্ড সার্চ ইন্জিন অপটিমাইজেশনে বেশ ভূমিকা পালন করে।তাই ভালো ফল পেতে হলে সঠিক কী-ওয়ার্ড এর ব্যবহার আপনাকে অবশ্যই করতে হবে।

এস ই ও শিখতে আপনাকে জানতে হবে কি- ওয়ার্ড রিসার্চ কি?

৪. Description ট্যাগের ব্যবহার

Description ট্যাগটি ব্যবহার করা হয় আপনার সাইটের বা ওয়েব পেজের একটা ছোট Description বা বর্ণনা দেবার জন্য।আমরা যেমন একটা বিশদ বিষয়ের অনেক সময় সংক্ষেপে প্রকাশ করি তেমনি Description ট্যাগের মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিনকে আমরা আমাদের ওয়েব পেজের একটা সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেয়া হয়।এটি SERPS পেজে সার্চ ইঞ্জিন গুলো প্রকাশ করে।

কিছু টিপস এর মাধ্যমে আপনি সুন্দর একটা Description আপনার সাইটের জন্য লিখতে পারবেন যেমন

  • ১. আপনার Description টি ২৫০ অক্ষরের মধ্যে রাখুন।কেননা প্রায় সকল সার্চ ইঞ্জিন ২৫০ অক্ষরের বেশী তাদের SERPS পেজে প্রকাশ করে না।

  • ২. এই ট্যাগে বানান যেন ভুল যায় না সেদিকে খেয়াল রাখুন।

  • ৩. ট্যাগটিতে আপনার পছন্দের কী-ওয়ার্ড লিখুন।তবে খেয়াল রাখবেন কোন কী-ওয়ার্ড বা বিষয় যেমন ৩ বারের বেশি ব্যবহার না করা হয়।

তাছাড়া টাইটেলে যেসকল টিপস দেয়া আছে তা আপনি Description ট্যাগে ব্যবহার করতে পারেন।আসলে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে সকল কথাই এক।

সাইটে <H1> থেকে  <H6> ট্যাগ ব্যবহার করুন

আপনার সাইটের পেজ গুলোতে কোন শিরোনাম ব্যবহার করলে তা অবশ্যই h1, h2 ,h3, h4, h5, h6 ট্যাগ গুলোর মধ্যে ব্যবহার করুন।কারণ সার্চ ইন্জিন গুলো আপনার ওয়েব সাইটের Bold <b> ,Italic <it> Underine <u> এই ট্যাগ গুলো তাদের এললগারিদমের মধ্যে পড়ে না।তাই সার্চ ইন্জিন <H1> থেকে  <H6> ট্যাগ গুলোকে এড করার চেষ্টা করে।কোন সার্চ ইন্জিন যখন কোন পেজ ক্রাউলিং করে তখন সে যদি <H1> থেকে  <H6> এর মধ্যে কোন ট্যাগ খুজে পায় তাহলে সে সেটিকে ঐ কন্টেট বা পেজ এর হেডলাইন বা শিরোনাম হিসাবে গ্রহণ করে।তাই অন-পেজ অপটিমাইজেশনে এই ট্যাগ গুলো ব্যবহার করলে সার্চ ইন্জিনের জন্য আপনার সাইট অনেক অংশেই তৈরী হয়ে যাবে।আসুন দেখে আসি কিভাবে ব্যবহার করবেন

heading tags এসইও অন পেজ অপটিমাইজেশন বিস্তারিত

  • ১. কোন লেখা শুরু করার প্রথমেই <H1> ট্যাগ ব্যবহার করুন শিরোনাম হিসাবে।

  • ২. এই ট্যাগের মধ্যে আপনি আপনার কাংখিত কী-ওয়ার্ডটি ব্যবহার করুন।

  • ৩. যথা সম্ভব ৬০ অক্ষরের মধ্যে রাখতে চেষ্টা করুন।

  • ৪. একই কী-ওয়ার্ড বার বার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।না হলে সার্চ ইন্জিন  গুলো এটিকে স্প্যামিং হিসাবে ধরে নিবে।

  • ৫. লেখার মাঝখানে মাঝখানে <h2> বা অন্য গুলো  উপ শিরোনাম হিসাবে ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।এতে করে আপনার সাইটটি অনেকটা ন্যাচারেল মনে হবে।আর প্রতিটি সার্চ ইন্জিনই সাইটের নমনীয়তা বা ন্যাচারেল ভাবটিকে সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে

কি- ওয়ার্ড রিসার্চ টুল এস ই

পেজ বা ফাইলের নামকরন করুন কী-ওয়ার্ড দিয়ে।

এটি ও অন -পেজ অপটিমাইজেশনের জন্য আর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।আমরা অনেকে যখন কোন পেজ তৈরি করি তখন তার একটি নাম দেয়ার প্রয়োজন হয়।যেমন সেটি হতে পারে yourdomin.com/nedf48718?p=5000  বা yourdomain.com/how-to-get-a-free-seo-tips.html।আচ্ছা বলুনতো কোনটি আপনার কাছে সবচেয়ে সহজবোধ্য মনে হচ্ছে?ঠিক তাই ২য় টিই আপনার কাছে  সহজবোধ্য মনে হওয়ার কথা।করণ আপনি ঐ লিংক দেখলেই আপনি বুঝতে পারবেন যে ঐ পেজের মধ্যে কি আছে।তাই আপনার মত সার্চ ইন্জিনদের কাছে ও ২য় লিংকটিই সহজবোধ্য মনে হবে।তাই আপনি যখন কোন পেজ বা ফাইলের নামকরণ করবেন তখন অবশ্যই সেটা অর্থপূর্ণ বা কী-ওয়ার্ড সমৃদ্ধ নাম ব্যবহার করবেন।
দেখুন নিচের ছবিতে top 10 tips seo লিখে সার্চ দিলে যে যে লিংক গুলো আসে তাদের সবার পেজেই কিন্তু ঐ কী-ওয়ার্ড সমৃদ্ধ নাম ব্যবহার করেছে।

99f2921814d0 এসইও অন পেজ অপটিমাইজেশন বিস্তারিত

আসুন দেখে নেই এর কিছু টিপস

  • ১. সাইটের পেজের নামে আপনার টার্গেটকৃত কী-ওয়ার্ডটি রাখুন।ধরুন আপনি “free seo tips for my new website” এই ধরনের কী-ওয়ার্ডকে টার্গেট করে পেজটি বানলেন তাহলে আপনি আপনার পেজের নাম রাখতে পারেন “how-can-get-free-seo-tips-for-my new website.html

  • ২. পেজের নাম দেয়ার সময় হাইফেন ( – ) ব্যবহার করুন।_, !, (), @,$  এই ধরনের অক্ষর ব্যবহার করবেন না।কারন সার্চ ইন্জিন এই ধরনের অক্ষর ইনডেক্স করে না।

  • ৩. ফাইল বা পেজের নাম দেয়ার সময় a,in,of,to, এমন অক্ষর গুলো ব্যবহার করবেন না।কারণ এগুলোকে সার্চ ইন্জিন “Skipping Word” বলে

  • ৪. ওয়েব পেজের এক্সটেইনশন .html ,.htm .php রাখা ভালো।

XML Sitemaps তৈরী করণ

আমরা যারা টুকিটাকি SEO নিয়ে কাজ করি তারা সবাই জানি একটি ওয়েব সাইটের জন্য XML Sitemaps কতটা গুরুত্বপূর্ণ।আর যারা জানেন না তাদের জন্য বলি সার্চ ইন্জিন সব ফাইল গুলোকে সমভাবে ক্রাউলিং করতে পারে না। XML ফরমেট এর ফাইল গুলোকে সার্চ বোট অনেক সহজ ভাবে  ক্রাউলিং করতে পারে।তাই  XML Sitemaps হলো এমন একটি ফাইল যেখানে আপনার সাইটের সব লিংক  গুলো একসাথে একটির পর একটি সাজানো অবস্থায় থাকে।আর যখন সার্চ বোট গুলো এই ফাইলের মধ্যে প্রবেশ করে তখন সে সব গুলো লিংকেই ইনডেক্স করার চেষ্টা করে।

এই হলো আমার আজকের টিউন। আশা করি আপনাদের কাজে আসবে। আর এসইও এর সবচেয়ে বড় বিষয় হলো কোন কাজ করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে। কেননা আপনার ভাবার কোন অবকাশ নেই যে আপনার সাইট একদিনেই গুগলের ১ম পেজ এ চলে আসবে। তাই ধীরে ধীরে এগুতে থাকুন আর সবসময় আপনার ওয়েব সাইটকে আপডেট রাখার চেষ্টা করুন।

 

Author: drmasud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *